deshbangla71news.com
নিজস্ব প্রতিবেদক

সৎসঙ্গ আশ্রম নাকি সৎসঙ্গ কনভেনশন সেন্টার?


নিজস্ব প্রতিবেদকঃ চট্টগ্রামের দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের সৎসঙ্গ আশ্রম বহুল পরিচিত একটি আশ্রম।কিন্তু সময়ের ব্যবধানে অতীতের সেই আশ্রমের সাথে বর্তমান এই আশ্রমের যেন আকাশ পাতাল তফাৎ গড়ে উঠেছে।

কিছু মানুষের অর্থ লিপ্সার কারণে দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের ৮০০০ থেকে ১০,০০০ মানুষ আজ করোনা মহামারীতে চরম আতংকে দিন কাটাচ্ছে।করোনাকালীন সময়ে সরকারী বিধি নিষেধ থাকলেও তার তোয়াক্কা করছে না মন্দির কতৃপক্ষ ।স্বাস্হ্যবিধিকে পদদলিত করে সমস্ত এলাকাবাসীকে ক্রমশ এক সংকটময় অবস্হায় নিয়ে যাচ্ছে ।

এক সুত্রে জানা যায়,করোনা মহামারীর শুরু থেকেই এই মন্দিরে বিয়ের অনুষ্ঠানের আয়োজন করে চলছে কিছু বহিরাগত ধর্মীয় প্রতিষ্টানের কর্মকর্তা। এই মন্দিরে একই দিনে ৪/৫ টা বিয়ে সম্পন্ন হয়।প্রতিটা বিয়ে বাবদ কতৃপক্ষ থেকে ৩০,০০০ টাকা করে ভাড়া নেয়া হয়।

একটা বিয়েতে ১০০ করে মানুষ জড়ো হলে ৫/৬ তা বিয়ের আয়োজন করা হলে সব মিলিয়ে ৫০০/৬০০ মানুষ জড়ো হয় এই মন্দিরে।এছাড়াও খাবারের আয়োজনও করা হয়।ফলে এলাকাজুড়ে এক মহা মিলন মেলার সমন্বয় ঘটে।সন্ধ্যা থেকে ভোর হওয়া পর্যন্ত চলে এই বিয়ের অনুষ্ঠান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একজন বলেন, এই মন্দির বর্তমানে কনভেনশন হল থেকে আরও বেশি খারাপ অবস্থানে পরিনত হয়েছে।তা না হলে মন্দিরের ছাদে বসে মদ সিগারেট এগুলো খাওয়ার পারমিশান পাই কেমনে? বিয়ের অনুষ্ঠানে রাতের ৩ টার দিকে মাতাল হয়ে চিৎকার করে করে গানও করে ওই মন্দিরে!আমি একবার ৯৯৯ এ কল করে অভিযোগ করেছিলাম।এরপরেও মন্দির কমিটিকে কোন একশ্যানের আওতায় নিতে দেখি নাই।

এছাড়াও স্থানীয় এক বাসিন্দা সাগর কুমার বিশ্বাস দেশ বাংলা ৭১ নিউজকে বলেন, বিয়ে হোক যেহেতু লগ্ন আছে। আগে থেকে সব ঠিক করা আছে। কিন্তু একটা বিয়েতে ১০/১৫ জনের বেশি আসা যাবেনা। কারণ বর্তমানে আমরা সবাই এক কঠিন পরিস্থিতির মধ্য দিয়ে যাচ্ছি।তাই আমাদের সকলকে জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে।

আর বর্তমান অনুকুল ঠাকুরের এই আশ্রম ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে পরিনত হয়েছে। কিছু মানুষের অর্থ লিপ্সার কারণে দেওয়ানজী পুকুর পাড়ের ৮০০০ থেকে ১০,০০০ মানুষ আজ করোনা মহামারীতে চরম আতংকে দিন কাটাচ্ছে।তাই আমি/আমরা সবাই চাই এগুলা যত তাড়াতাড়ী সম্ভব বন্ধ করা হোক।আমরা সবাই জেলা প্রশাসন,মে্ট্রোপলিটন পুলিশ, স্বাস্হ্য অধিদপ্তর,ও অন্যান্য করোনা প্রতিরোধে গঠিত পর্যবেক্ষন কমিটির সদাশয় দৃষ্টি আকর্ষন কামনা করছি।

স্হানীয় সংসদ সদস্য, সিটি মেয়র, ওয়ার্ড কাউন্সিলর সহ সবার হস্তক্ষেপ কামনা করছি।যাতে করে এলাকাবাসীকে করোনার হাত থেকে রক্ষা করা যায়।


Related posts

অর্ধশত বছরে ভয়াবহ অপারেশন সার্চলাইট: জাতীয় গণহত্যা দিবস

Kazi MD Sazzad Hasan

রিয়াল মাদ্রিদ এর বড় জয়

Kazi MD Sazzad Hasan

মার্কিন প্রেসিডেন্ট হতে চান ‘দ্য রক’

Kazi MD Sazzad Hasan