deshbangla71news.com
নিজস্ব প্রতিবেদক

দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে পাকিস্তানের সিরিজ জয়


সাকিফুল ইসলামঃ এবার দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে দক্ষিণ আফ্রিকাকে হারাল সফরকারী পাকিস্তান। ২-১ ব্যবধানে ওয়ানডে সিরিজ জিতে নেয় পাকিস্তান।

দক্ষিণ আফ্রিকা ও পাকিস্তানের মধ্যকার ওডিআই সিরিজের ৩য় ও শেষ ম্যাচে মুখোমুখি হয় দুদল। এর আগে ১ম ওডিআইতে পাকিস্তান জয়ী হয় এবং দ্বিতীয় ওডিআইতে দক্ষিণ আফ্রিকা জয়ী হয়ে সিরিজ সমতায় আনে।

কিন্তু প্রথম ২ ওডিআইতে খেলা কাগিসো রাবাদা, কুইন্টন ডি-কক, লুঙ্গি এনগিডি, ডেভিড মিলার এবং এনরিচ নর্টজে আইপিএলে যোগদান করার জন্য শেষ ওডিআই খেলেনি। শেষ ম্যাচের আগেই বিমানে করে আইপিএলের উদ্দেশ্য ভারতে রওনা দেয় এই ক্রিকেটাররা। যেখানে শেষ ম্যাচ জিতলেই সিরিজ ছিল দক্ষিণ আফ্রিকার।

সেঞ্চুরিয়ানের সুপার স্পোর্টস পার্কের মাঠে শেষ ওডিআইতে টসে হেরে ব্যাট করতে নামে সফরকারী পাকিস্তান। যেখানে ইনিংসের দারুণ সূচনা করে দুই ওপেনার ফকর জামান এবং ইমাম-উল-হক।

১১২ রানের দারুণ জুটি করে দলকে এগিয়ে নিয়ে যায় এই যুগল। দলীয় ১১২ রানে ক্যাচ আউট হয়ে ফিরেন ইমাম-উল-হক। এরপর অধিনায়ক বাবর আজম এবং ফকর জামান করেন ৯৪ রানের বড় জুটি। ক্যারিয়ারের ৬ষ্ঠ সেঞ্চুরি তুলে নেন ফকর জামান।

এরপর আস্তে আস্তে উইকেট হারাতে থাকে সফরকারীরা। হাসান আলী এবং অধিনায়ক বাবর আজমের শেষে চার ছক্কার তান্ডবে দলকে পৌঁছে দেন ৩২০ রানে। মাত্র ৬ রানের জন্য সেঞ্চুরি করতে পারেননি অধিনায়ক বাবর আজম। ৫০ ওভার শেষে ৭ উইকেটে বিনিময়ে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৩২০ রান।

পাকিস্তানের হয়ে সর্বোচ্চ ১০১(১০৪) রান করেন ফকর জামান। বাবর আজম ৯৪(৮২), ইমাম-উল-হক ৫৭(৭৩) এবং হাসান আলী ৩২*(১১) রান করেন।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট শিকার করেন কেশব মহারাজ। এডেন মার্করাম ২ উইকেট এবং ফিকোওয়ে ও স্মাটস নেন ১ টি করে উইকেট।

৩২১ রানের বিশাল টার্গেট তাড়া করতে নামে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা। ৫৪ রানের দারুণ জুটি করেন মালান এবং মার্করাম। দল যখন দারুণভাবে এগোচ্ছিল তখনই ব্রেকথ্রো এনে দেয় শাহিন আফ্রিদি।

১৪০ রানে ৫ উইকেট হারিয়ে যখন দল চরম বিপর্যয়ে ঠিক তখনই দলকে উদ্ধার করে লক্ষ্যে পৌছানোর চেষ্টা করছিল ফিকোওয়ায়ো এবং ভেরানি। ১০৮ রানের দারুণ জুটি করেন এই যুগল।

শেষ মুহূর্তে পাকিস্তানি বোলারদের দাপটে ২৯২/১০ রানে থামে স্বাগতিকদের ইনিংস। ২৮ রানে জয়ী হয় পাকিস্তান।

দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে সর্বোচ্চ ৭০(৮১) রান করেন মালান। এছাড়াও ভেরানি ৬২(৫৩), ফিকোওয়ায়ো ৫৪(৬১), বাভুমা ২০(২৩), মহারাজ ১৯(১১), মার্করাম ১৮(২১), স্মাটস ১৭(১৮) রান করেন।

পাকিস্তানি বোলারদের হয়ে সর্বোচ্চ ৩টি করে উইকেট শিকার করেন শাহিন আফ্রিদি এবং মোহম্মদ নেওয়াজ। ২ উইকেট নেন হারিস রাউফ। ১ টি করে উইকেট শিকার করেন হাসান আলী এবং উসমান ক্বাদীর।

অসাধারণ ব্যাটিং পারফরম্যান্স দিয়ে ম্যাচ সেরা হয়েছেন অধিনায়ক বাবর আজম। টানা ২ সেঞ্চুরির মধ্যে দিয়ে দুর্দান্ত ব্যাটিংয়ে সিরিজ সেরা হয়েছেন ফকর জামান।

সেই সাথে ২-১ ব্যবধানে দক্ষিণ আফ্রিকার মাটিতে সিরিজ জিতে নেয় পাকিস্তান।

৪ ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে আগামী ১০ এপ্রিল (শনিবার) জোহানসবার্গের দা ওয়ানডেরেস স্টেডিয়ামে মুখোমুখি হবে স্বাগতিক দক্ষিণ আফ্রিকা এবং সফরকারী পাকিস্তান।


Related posts

তারুণ্য ধরে রাখেতে বরই এর উপকারিতা।

নিজস্ব প্রতিবেদক

ছাত্রলীগের অপকর্ম যদি পুরো বাংলাদেশ ছাত্রলীগকে নিতে হয়,তবে ভালো কাজের কৃতিত্ব নয় কেন?

নিজস্ব প্রতিবেদক

“ভালোবাসা দিবস বা সেন্ট ভ্যালেন্টাইন’স ডে”

নিজস্ব প্রতিবেদক